বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) ষষ্ঠ আসরে জয়ের রথ থামছেই না ঢাকা ডায়নামাইটসের। রাজশাহী কিংস, খুলনা টাইটানস এবং রংপুর রাইডার্সের পর সিলেট সিক্সার্সকে হারিয়ে টানা চার ম্যাচে জয় পেলো শাকিব আক হাসানের ঢাকা।

মিরপুর শের-ই-বাংলা স্টেডিয়ামে শনিবার (১২ জানুয়ারি) বিপিএলের ১২তম ম্যাচে সিলেট সিক্সার্সকে ৩২ রানে ব্যবধানে পরাজিত করে ঢাকা ডায়নামাইটস। এই জয়ে ফলে চার খেলায় ৮ পয়েন্ট নিয়ে নিজেদের শীর্ষস্থান অক্ষুণ্ণরাখল তারা।

এদিন টস জিতে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে রনি তালুকদারের ফিফটিতে ৭ উইকেটে ১৭৩ রান সংগ্রহ করে ঢাকা।জবাবে ৯ উইকেটে ১৪১ রানে থামে সিলেটের রানের রথ।

প্রথমে ব্যাট করতে নামা ঢাকার শুরুটা ভালো যায়নি। দলীয় ৪ রানেই পাকিস্তানি পেসার সোহেল তানভীরের বলে ডিপ মিড উইকেটে আফিফ হোসেনের হাতে ধরা পড় প্যাভিলিয়নে ফেরেন আফগান ব্যাটসম্যান হজরতউল্লাহ জাজাই।ঢাকার হয়ে প্রথম দুই ম্যাচে (৭৮ ও ৫৭) রানের বন্যা বইয়ে দিয়েছিলেন এই জাজাই। তবে তৃতীয় ও চতুর্থ ম্যাচে ১ ও ৪ রান।

তবে ঢাকা শুরুর এই ধাক্কাটা সামলে ওঠে রনি তালুকদার ও সুনীল নারিনের ব্যাটে। দ্বিতীয় উইকেটে এই দুজন যোগ করেন ৬৭ রান। এরপর ৫৪ রানের ব্যবধানে ৬ উইকেট হারায় ঢাকা ডায়নামাইটস। নারিন ২১ বলে ২৫ রান করে অলক কাপালির বলে ফিরলে ভাঙে এ জুটি।

এরপর দুর্দান্ত খেলতে থাকা রনি তালুকদার ৩৪ বলে ৫৮ রান করে আফিফ হোসেনের বলে ক্যাচ তুলে দিয়ে প্যাভিলিয়নে ফেরেন। ঢাকা অধিনায়ক সাকিবকে ব্যক্তিগত ১৭ বলে ২৩ রান সময় ফেরান আল-আমিন হোসেন।

ঢাকার স্কোর তখন ৭ উইকেটে ১২৫ রান। অষ্টম উইকেটে নুরুল হাসান সোহান ও মোহাম্মদ নাঈমের অবিচ্ছিন্ন ৪৮ রানের জুটিতে বড় পুঁজি পায় তারা। সোহান ১০ বলে এক ছক্কায় ১৮ ও নাঈম ২৩ বলে একটি করে চার ও ছক্কায় ২৫ রানে অপরাজিত ছিলেন। সাতে ব্যাটিংয়ে নেমে মাত্র ৫ রানে ফেরেন আন্দ্রে রাসেল। ৩ রানের বেশি করতে পারেননি কায়রন পোলার্ড। শেষ পর্যান্ত ২০ ওভার শেষে ঢাকার রানের পুঁজি দাড়ায় ৭ উইকেটে ১৭৩।

সিলেটের হয়ে চার ওভারে ৩৮ রানে ৩ উইকেট নেয় তাসকিন আহমেদ। তানভীর, আল-আমিন হোসেন, কাপালি ও আফিফ নেন একটি করে উইকেট।

জবাবে জয়ের জন্য ১৭৪ রানের লক্ষ্যে তারা করতে ব্যাটিংয়ে চরম বিপদে পড়ে যায় সিলেট সিক্সার্স। সাকিবে ঘূর্ণি বলে বিভ্রান্ত হয়ে দলীয় ৩৭ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে কোণঠাসা হয়ে পড়েছে সিলেট।

ডেভিড ওয়ার্নারকে ব্যক্তিগত ৭ রানের ফিরিয়ে শুরুটা করেছিলেন অধিনায়ক সাকিবই।নসিরকেও ফেরান ব্যক্তিগত ১ রানের মাথায়। ব্যক্তিগত ৯ রানের সময় নারিনের শিকার হন লিটন, আলিফের ব্যক্তিগত ৪ রানের মাথায় ফেরা শুভগত। দলের ব্যাটিং বিপর্যয়ের দিনে হাল ধরতে পারেননি সাব্বির রহমান রুম্মন। মাত্র ১২ রানে ফেরেন জাতীয় দল থেকে শৃঙ্খলা ভঙের অভিযোগে বাদ পড়ে যাওয়া এই ক্রিকেটার।

দলকে এই বিপর্যয়ে ব্যাটসম্যানদের যাওয়া-আসার মিছিলে একাই লড়াই করেন নিকোলাস পুরান। ৪৭ বলে ৯ ছক্কা ও এক চারে ৭২ রান করেন তিনি। অষ্টম উইকেটে তাসকিনের সঙ্গে ৩৪ বলে ৫০ রানের জুটি গড়েন। যেখানে তাসকিনের রান ছিলো মাত্র ৫। তার ঝোড়ো ব্যাটিংয়ে ফলে ২০ ওভার শেষে ৯ উইকেট হারিয়ে সিলেটের রানের রথ থাম ১৪১ এ।

সংক্ষিপ্ত স্কোর

ঢাকা ডায়নামাইটস: ২০ ওভারে ১৭৩/৭ (রনি তালুকদার ৫৮, মোহাম্মদনবি ২৫*, ২৫ নারিন, সাকিব ২৩; তাসকিন ৩/৩৮)।

সিলেট সিক্সার্স: ২০ ওভারে ১৪১/৯ (নিকোলাস ৭২, তাসকিন ১৭,সাব্বির ১২; রুবেল ৩/২২)।

ফল: ঢাকা ডায়নামাইটস ৩২ রানে জয়ী।

প্লেয়ার অব দ্যা ম্যাচঃ রনি তালুকদার

LEAVE A REPLY