বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) ঢাকার দ্বিতীয় পর্বের আজকের দিনের দ্বিতীয় ম্যাচে সাকিব আল হাসানের ঢাকা ডায়নামাইটসকে ৭ রানে হারিয়ে পয়েন্ট টেবিলের চার নাম্বার থেকে তিনে উঠে আসলো ইমরুল কায়েসের কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স।

মঙ্গলবার(২২ জানুয়ারি) মিরপুরের শের-ই-বাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টস হেরে আগে ব্যাট করতে নেমে ৮ উইকেটে ১৫৩ রান করেছিল কুমিল্লা।জবাবে ২০ ওভারে ৯ উইকেট হারিয়ে ১৪৬ রানে থামে ঢাকার ইনিংস। ফলে ৭ রানের জয় পায় কুমিল্লা। ৮ ম্যাচে কুমিল্লার পঞ্চম জয়প ১০ পয়েন্ট অর্জন করল ইমরুল কায়েসের কুমিল্লা এবং উঠে এলো পয়েন্ট টেবিলের তিন নাম্বারে।এটি অন্যদিকে সমান সংখ্যক ম্যাচে তৃতীয় হার নিয়ে ১০ পয়েন্ট থাকলেও ঢাকা পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে রয়েছে এখনো। ঢাকার প্রথম পর্বে চার ম্যাচে চারটিতেই জয়ী হওয়া ঢাকার টানা দ্বিতীয় হার এটি। গতকাল চিটাগাং ভাইকিংসের সাথে হারে তারা।

টস হেরে ব্যাট করতে নেমে কুমিল্লার শুরুটা ভালো হয়নি। দুই অঙ্ক ছোঁয়ার আগেই ফিরেছেন এনামুল হক বিজয় ও ইমরুল কায়েস। ২৭ রানে ২ উইকেট হারানোর পর দলকে ৭৮ পর্যন্ত টেনে নেন তামিম ইকবাল ও শামসুর রহমান।

২৯ বলে ৩৪ রান করা তামিমকে ফিরিয়ে জুটি ভাঙেন সাকিব। বাঁহাতি স্পিনার নিজের পরের ওভারে এসে তিন বলের মধ্যে তুলে নেন শহীদ আফ্রিদি (৮ বলে ১৬) ও শামসুরের (২৫ বলে ৪৮) উইকেট। এর মধ্যে শামসুরকে ফিরিয়ে প্রথম খেলোয়াড় হিসেবে বিপিএলে একশ উইকেটের মাইলফলক স্পর্শ করেন সাকিব।

১১২ রানে ৫ উইকেট হারানোর পর কুমিল্লার স্কোর দেড়শ পেরিয়েছে মূলত থিসারা পেরেরার ১২ বলে ৩ ছক্কায় ২৬ রানের ক্যামিওতে।

ঢাকার হয়ে সাকিব আল হাসান চার ওভারে ২৪ রানে ৩টি এবং রুবেল ২৬ ও রাসেল ২৭ রানে নেন ২টি করে উইকেট।

কুমিল্লার দেওয়া ১৫৪ রানে তাড়া করতে নেমে ৫০ রানে ৪ উইকেট হারিয়ে ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়ে যায় ঢাকা। এমন করুণ অবস্থায় দুর্দান্ত ব্যাটিং করে দলকে খেলায় ফেরানোর পাশাপাশি জয়ের স্বপ্ন দেখান আন্দ্রে রাসেল ও সাকিব।

একটা সময়ে জয়ের জন্য ঢাকার প্রয়োজন ছিল ৩৬ বলে ৪৯ রান। ব্যাটিংয়ে ছিলেন সাকিব আল হাসান ও একের পর এক ছক্কা হাঁকানো আন্দ্রে রাসেল। তাদের ব্যাটিংয়ে জয়ের স্বপ্ন দেখে ঢাকা।

ইনিংসের ১৫তম ওভারে প্রথম বোলিংয়ে এসেই ৮ রান দিয়ে দুর্দান্ত ফর্মে থাকা রাসেলের উইকেট তুলে নেন থিসেরা পেরেরা। সাজঘরে ফেরার আগে ২৪ বলে দৃষ্টিনন্দন ৫টি ছক্কায় ৪৬ রান করেন রাসেল। ঠিক পরের ওভারের শেষ বলে সাকিবকে ফেরান শহীদ আফ্রিদি।

১৭তম ওভারে বোলিংয়ে এসে ৫ রান দিয়ে শুভাগত হোম ও নুরুল হাসান সোহানের উইকেট তুলে নেন পেরেরা। মাত্র দুই ওভারে ১৩ রানে ৩ উইকেট তুলে নিয়ে কুমিল্লার জয় প্রায় নিশ্চিত করেন পেরেরা। বাকি ছিল শুধু আনুষ্ঠানিকতা। সেই আনুষ্ঠানিকতা সারেন সাইফউদ্দিন।

শেষ দিকে স্বীকৃত কোনো ব্যাটসম্যান না থাকা এবং রান রেটে বেড়ে যাওয়ায় মোহাম্মদ নাইম ও রুবেল হোসেনের পক্ষে ডায়নামাইটসকে জয়ের বন্দরে পৌঁছান সম্ভব হয়নি। শেষ ওভারে জয়ের জন্য ঢাকার প্রয়োজন ছিল ১৯ রান। সাইফউদ্দিনের করা ওভারে ১১ রানের বেশি নিতে পারেনি ঢাকা।

কুমিল্লার হয়ে তিন ওভারে ১৪ রান দিয়ে নেন ৩টি উইকেট। এছাড়া চার ওভারে ১৮ রান দিয়ে আফ্রিদি ২টি এবং একটি করে উইকেট নেন সাইফউদ্দিন ও ওয়াহাব রিয়াজ।

সংক্ষিপ্ত স্কোর

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স: ২০ ওভারে ১৫৩/৮ (শামসুর ৪৮, তামিম ৩৪, পেরেরা ২৬; সাকিব ৩/২৪)।

ঢাকা ডায়নামাইটস: ২০ ওভারে ১৪৬/৯ (রাসেল ৪৬, সাকিব ২০, নারিন ২০; পেরেরা ৩/১৪, আফ্রিদি ২/১৮)।

ফল: কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স ৭ রানে জয়ী।

ম্যাচ সেরা: থিসারা পেরেরা  

LEAVE A REPLY