এক পাশে মাশরাফি, গেইল, ডি ভিলিয়ার্স, হেলস। আরেক পাশে সাকিব, আন্দ্রে রাসেল, পোলার্ড, নারিন। বিপিএল দর্শকদের হাই-ভোল্টেজ পারফরম্যান্সের প্রত্যাশা ছিল তাদের কাছ থেকে। বেশ ভালোভাবেই সেই প্রত্যাশা পূরণ করেছেন তারা। প্রথম ইনিংসে ৬ উইকেটে ১৮৬ রান তোলে ঢাকা ডায়নামাইটস। জবাবে ৮ উইকেট হাতে রেখে ১০ বল আগে লক্ষ্যে পৌঁছে যায় রংপুর রাইডার্স।বলাই যায় এই হাই-ভোল্টেজ ম্যাচ স্টেডিয়ামে আসা ১৮ হাজার দর্শকে অনেক খানি প্রত্যাশা পূরন করেছে।

গ্রুপ পর্বে ঢাকা ডায়নামাইটস-রংপুর রাইডার্সের প্রথম ম্যাচে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ে শেষ ওভারে গিয়ে ঢাকার কাছে মাত্র দুই রানে হেরে যায় রংপুর। আজ(২৮ জানুয়ারি,সোমবার) চট্টগ্রাম জহুর আহমেদ স্টেডিয়ামে ঢাকা ডায়নামাইটসকে ৮ উইকেটে হারিয়ে গ্রুপ পর্বে তাদের সাথে প্রথম ম্যাচে হারের শোধ নিয়ে নিলো রাইডার্সরা।অন্যদিকে ঢাকাকে হারিয়ে মাত্র কয়ে ঘন্টার ব্যবধানে কুমিল্লাকে টপকে বিপিএলের পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে চলে আসলো মাশরাফির বিন মর্তুজার রংপুর রাইডার্স।

বিপিএলের ৩৪তম ম্যাচে টস জিতে প্রথমে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয় ঢাকা ডায়নামাইটস। ব্যাটিংয়ে নেমে ঢাকার দুই ওপেনার হযরতুল্লাহ জাজাই আর সুনীল নারিন মিলে দেখেশুনে শুরু করেন। ৫.১ ওভারে এই জুটির ভাঙে ৩৫ রানের মাথায়।

দুই ওপেনারের বিদায়ের পর রনি তালুকদার খেলেন দুর্দান্ত ইনিংস। ৩২ বলে ছয়টি চার আর এক ছয়ে মিলে ৫২ রান করে বিদায় নেন শফিউল ইসলামের বলে।

মাঝে সাকিব আল হাসানের ১২ বলে ২৫ আর শেষদিকে কাইরন পোলার্ডের ২৩ বলে ৩৭ রানের ইনিংসে ২০ ওভার শেষে ৬ উইকেটে ১৮৬ রানের লক্ষ্য দাঁড় করায় রংপুরের সামনে।

রংপুরের হয়ে ২ উইকেট নেন ফরহাদ রেজা। ১টি করে উইকেট নেন মাশরাফি, নাজমুল ইসলাম, শফিউল ইসলাম ও শাহিদুল ইসলাম।

১৮৭ রানে বিশাল লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে শুরুটা নড়বড়ে রংপুরের। ৫ রান তুলতেই সাজঘরে ক্রিস গেইল ও রাইলি রুশো। ‘ঘুমে’ থাকা গেইল আজও জাগলেন না। স্বদেশী আন্দ্রে রাসেলের বলে আরেক স্বদেশী সুনীল নারিনের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন ১ রানে। পরের বলেই রুশো ফেরেন উইকেটের পেছনে ক্যাচ দিয়ে।

কিন্তু এরপরের গল্পটা শুধুই অ্যালেক্স হেলস ও এবি ডি ভিলিয়ার্সময়।পুরো ম্যাচের একাধিক খন্ডচিত্র থাকলেও এবি ডি ভিলিয়ার্স বড় জায়গা দখল করে রেখেছেন। বিপিএলের মঞ্চে প্রথমবারের মতো খেলতে এসেই করলেন সেঞ্চুরি। ২২ গজে তার দোর্দন্ড প্রতাপে স্রেফ উড়ে গেল ঢাকা। ৫০ বলে অপরাজিত ১০০ রানের ইনিংস খেললেন এক প্রান্ত থেকে। আরেক প্রান্তে তাকে সঙ্গ দিলেন অ্যালেক্স হেলস। আগের ম্যাচে সেঞ্চুরি পাওয়া হেলস করলেন ৫৩ বলে অপরাজিত ৮৫ রান। দুজনের তৃতীয় উইকেটে অবিচ্ছিন্ন ১৮৪ রানের জুটি এখন টি-টোয়েন্টিতে সর্বোচ্চ।

বিপিএলের এবারের আসরে ডি ভিলিয়ার্সেরসহ মোট ৫টি সেঞ্চুরি হলো। এর আগে লরি ইভান্স, অ্যালেক্স হেলস, রাইলে রুশো ও এভিন লুইস সেঞ্চুরি করেছেন। আর ডি ভিলিয়ার্সের টি-টোয়েন্টি ক্যারিয়ারে এটি চতুর্থ সেঞ্চুরি।

সংক্ষিপ্ত স্কোর

ঢাকা ডায়নামাইটস: ২০ ওভারে ১৮৬/৬ (রনি ৫২, পোলার্ড ৩৭*, নারাইন ২৮, সাকিব ২৫; ফরহাদ ২/৩২)।

রংপুর রাইডার্স: ১৮.২ ওভারে ১৮৯/২ (ভিলিয়ার্স ১০০*, হেলস ৮৫*)।

ফল: রংপুর ৮ উইকেটে জয়ী।

ম্যাচ সেরা: এবি ডি ভিলিয়ার্স

LEAVE A REPLY