আবারো ইনিংস ব্যবধানে হার বাংলাদেশের

যে টেস্টের প্রথম দুদিন বৃষ্টিতে ভেসে গিয়েছিল, তৃতীয় দিনের খেলায় আবার বৃষ্টি বাগড়ায় ৩০ ওভারের মত খেলা হয়নি। সেই টেস্ট ম্যাচের নিষ্পত্তি হলো ৫ম দিনের মধ্যাহ্ন বিরতির আগে। আর এর ফলে আজ মঙ্গলবার ওয়েলিংটনে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে দ্বিতীয় টেস্টে নিউজিল্যান্ড জিতেছে ইনিংস ও ১২ রানে। ফলে তিন টেস্ট সিরিজে নিউজিল্যান্ড ২-০-এ এগিয়ে গিয়ে সিরিজ জয় নিশ্চিত করল।

প্রথম ইনিংসে স্বাগতিক নিউজিল্যান্ডের করা ৪৩২ রানের জবাবে বাংলাদেশের দুই ইনিংস থামলো ২১১ ও ২০৯ রানে। দ্বিতীয় ইনিংসে অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহ রিয়াদের ৬৭ এবং মোহাম্মদ মিঠুনের ৪৭ রান সত্ত্বেও ইনিংস পরাজয় এড়াতে পারেনি টাইগাররা।

বাংলাদেশ আজ ৫ম ও শেষ দিনের খেলা শুরু করেছিল ৩ উইকেটে ৮০ রান নিয়ে। বাংলাদেশের পক্ষে সর্বোচ্চ ৬৭ রান করেন মাহমুদুল্লাহ। এছাড়া মোহাম্মদ মিঠুন করেন ৪৭, সৌম্য সরকার করেন ২৮ রান। বাংলাদেশের শেষ ৫ উইকেটের পতন ঘটে ৫১ রানে। শেষ দিকে আর কোনো প্রতিরোধই দেখা যায়নি।

ওয়াগনার ৫টি আর বোল্ট ৪টি উইকেট নিয়ে বাংলাদেশের ব্যাটিং লাইনে ধস নামান। শর্ট বলে বাংলাদেশের দুর্বলার সুযোগটি নিউজিল্যান্ড বেশ ভালোভাবেই গ্রহণ করেছে।

বৃষ্টি কারনে দুইদিন পর ওয়েলিংটনে টেস্ট শুরু হয়েছিল তৃতীয় দিনে।তৃতীয় দিনে টস জিতে  টাইগারদের ব্যাটে পাঠায় কিইউ অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন। তৃতীয় দিনে বেসিন রিজার্ভে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে দেখে শুনেই ব্যাট চালাতে থাকেন বাংলাদেশের দুই ওপেনার তামিম ইকবাল ও সাদমান ইসলাম। উদ্বোধনী জুটিতে দু’জন মিলে গড়েন ৭৫ রানের জুটি। হ্যামিল্টন টেস্টে ৫৭ ও ৮৮ রানের জুটির পর ওয়েলিংটনে শুরুর জুটিতে ৭৫ রান পায় বাংলাদেশ। যা নিউজিল্যান্ডের মাটিতে টেস্ট ইতিহাসে সফরকারী কোনো দলের উদ্বোধনী জুটিতে দ্বিতীয়বার টানা তিন অর্ধশত।

৫৩ বলে চারটি চারের সাহায্যে সাদমান ২৭ রান করে গ্রান্ডহোমর বলে আউট হন। তামিম টেস্ট ক্যারিয়ারে ২৭তম অর্ধশতক তুলে নেন। আগের ম্যাচে তামিম করেছিলেন ১২৬ আর ৭৪ রান। এই ম্যাচেও তার ব্যাট হেসেছে। ১১৪ বলে ১০টি বাউন্ডারিতে তামিম করেন ৭৪ রান। এছাড়া, মুমিনুল ১৫, মিঠুন ৩, সৌম্য ২০, মাহমুদউল্লাহ ১৩, লিটন দাস ৩৩ রান করেন। শেষ দিকে তাইজুল ৮, মোস্তাফিজ ০ এবং আবু জায়েদ ৪ রান করেন।

নিউজিল্যান্ডের ট্রেন্ট বোল্ট তিনটি, নেইল ওয়াগনার চারটি, টিম সাউদি একটি, ম্যাট হেনরি একটি আর গ্রান্ডহোম একটি করে উইকেট পান।

ব্যাটিংয়ে নেমে দলীয় ৮ রানেই দুই ওপেনারকে হারায় নিউজিল্যান্ড। জীত রাভাল (৩) আর টম ল্যাথামকে (৪) ফিরিয়ে দেন বাংলাদেশের পেসার আবু জায়েদ রাহি। এরপর বৃষ্টির কারণে তৃতীয় দিনের খেলা বন্ধ হয়ে যায়। চতুর্থ দিন দলপতি কেন উইলিয়ামসন ৭৪ রান করে বিদায় নেন। রস টেইলর ২০০ রান করে বিদায় নেন। ২১২ বলে তার সাজনো ইনিংসে ছিল ১৯টি চার আর চারটি ছক্কার মার। হেনরি নিকোলস ১২৯ বলে ৯টি বাউন্ডারিতে করেন ১০৭ রান। বিজে ওয়াটলিং ৮ রান করেন। কলিন ডি গ্রান্ডহোম ২৩ রানে অপরাজিত থাকেন।

বাংলাদেশের পেসার আবু জায়েদ তিনটি, স্পিনার তাইজুল ইসলাম দুটি আর পেসার মোস্তাফিজুর রহমান একটি উইকেট পান।

বাংলাদেশ একাদশ: তামিম ইকবাল, সাদমান ইসলাম, সৌম্য সরকার, মুমিনুল হক, মোহাম্মদ মিঠুন, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, লিটন দাস, তাইজুল ইসলাম, আবু জায়েদ, এবাদত হোসাইন ও মোস্তাফিজুর রহমান।

নিউজিল্যান্ড একাদশ: জিত রাভাল, টম ল্যাথাম, কেন উইলিয়ামসন, রস টেইলর, হেনরি নিকোলস, বিজে ওয়াটলিং, কলিন ডি গ্রান্ডহোম, ম্যাট হেনরি, টিম সাউদি, নেইল ওয়াগনার ও ট্রেন্ট বোল্ট।

২০০ রান করার সুবাদে ম্যান অব দি ম্যাচের পুরস্কার পেয়েছেন রস টেলর।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

বাংলাদেশ প্রথম ইনিংস: ২১১/১০
তামিম ৭৪, লিটন ৩৩, ওয়েগনার ৪/২৮।

নিউজিল্যান্ড প্রথম ইনিংস: ৪৩২/৬ (ডিক্লে)
টেইলর ২০০, নিকোলাস ১০৭, উইলিয়ামসন ৭৩।
রাহি ৩/৯৪।

বাংলাদেশ দ্বিতীয় ইনিংস: ২০৯/১০
মিঠুন ৪৭, সৌম্য ২৮, মাহমুদউল্লাহ ৬৭।
বোল্ট ৪/৫২, ওয়েগনার ৫/৪৫।

নিউজিল্যান্ড ইনিংস ও ১২ রানে জয়ী।

LEAVE A REPLY