২০১৮ সালে নিজেদের খেলা ওয়ানডে ম্যাচে বেশ ভালোই দাপটেই খেলেছে টাইগার বাহিনী।নিজেদের ২০ ওয়ানডে ম্যাচের মধ্যে ১৩ টিতেই জিতেছে বাংলাদেশ দল। আর এতেই এবছরের ১৮টি ওয়ানডে খেলা দলের মধ্যে জয় বিবেচনায় বাংলাদেশ তৃতীয় । এমনকি পিছনে ফেলে দিয়েছে অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ডের মত পরাশক্তি দলকেও। ওয়ানডের মত বাকি দুই ফরম্যাটে ততটা জ্বলে উঠতে না পারলেও কম যায়নি একেবারে। সামর্থ্যর প্রমাণ দিয়েছে নিজেদের।

আর কিছুদিন পরেই ২০১৯ সাল গননা শুরু হবে।আর ২০১৯ সালটা দল ফেলানোর ফুসরত থাকবে না টাইগার বাহিনীর।বছরের প্রথমটা শুরু হবে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) ষষ্ঠ আসর দিয়ে। বছরের একেবারে শেষের দিকে আছে শ্রীলংকা সফর। ডিসেম্বরের এই সিরিজে লঙ্কানদের মাটিতে তিন ম্যাচের একটি ওয়ানডে সিরিজ খেলবে বাংলাদেশ। আর এই সিরিজ দিয়েই সমাপ্তি ঘটবে ২০১৯ সালের। তবে যেই সময়টাতে একটু গ্যাপ আছে, বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড চাইলে তখন অন্যান্য বোর্ডের সঙ্গে আলোচনা করে আইসিসির ফিউচার ট্যুর প্রোগ্রামের (এফটিপি) বাইরে যেকোনো ম্যাচ বা সিরিজ খেলতে পারবে।

এবার দেখা যা এবছরের লালা-সবুজ প্রতিনিধিদের খেলাগুলোকেঃ

বছর শুরুর প্রথম দিকে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) ষষ্ঠ আসর শেষ হতে না হতেই ধরতে হবে নিউজিল্যান্ডগামী বিমান। ফেব্রুয়ারিতে কিউইউদের বিপক্ষে তিনটি করে ওয়ানডে ও টেস্ট ম্যাচের মধ্যে দিয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট শুরু করবে বাংলাদেশ। সিরিজ ২০ মার্চ শেষ হওয়ার পর এক মাসের বিরতি পাবে টাইগার বাহিনী।

মে মাসে আয়ারল্যান্ডের মাটিতে উইন্ডিজসহ একটি ত্রিদেশীয় সিরিজ খেলে সেখান থেকে সোজা বিশ্বকাপের ভেন্যু ইংল্যান্ডে যোগ দিবে মাশরাফি বিন মর্তুজার দল।২ জুন দক্ষিণ আফ্রিকা সাথে খেলার মধ্যে দিয়ে শুরু হবে টাইগার বাহিনীদের বিশ্বকাপ মিশন।বিশ্বকাপ শেষে মাস দুয়েকের বিরতি পাবে লাল-সবুজ জার্সি পরিহিত টাইগার বাহিনী।অক্টোবরে তিন ম্যাচের একটি টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলতে বাংলাদেশে আসার কথা আছে অস্ট্রেলিয়ার দলের।
এর ঠিক পরেই মাঠে গড়াবে আফগানিস্তানের বিপক্ষে এক টেস্ট ও দুই ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ।এরপর নভেম্বরে ভারত সফর করবে বাংলাদেশ। সেখানে স্বাগতিকদের বিপক্ষে খেলবে দুটি টেস্ট ও তিনটি টি-টোয়েন্টি।

ডিসেম্বরের লঙ্কানদের মাটিতে তিন ম্যাচের একটি ওয়ানডে সিরিজ খেলবে বাংলাদেশ। আর এই সিরিজ দিয়েই সমাপ্তি ঘটবে ২০১৯ সালের টাইগার বাহিনীদের মিশন।

তবে বিসিবি চাইলে ফাঁকা থাকা সময়ে অন্যান্য বোর্ডের সঙ্গে আলোচনা করে এফটিপির বাইরে যেকোনো ম্যাচ বা সিরিজ খেলতে পারে। এছাড়াও পাকিস্তারের বিপক্ষে একটা পাওনা সিরিজে এই বছরেই মাঠে নামার কথা আছে টাইগারদের।

LEAVE A REPLY