ইচ্ছার কাছে বয়সও যে হার মানতে বাধ্য সেটা মান কউরকে না দেখলে বোঝার উপায় নেই! ১০১ বছর বয়সে ১০০ মিটার স্প্রিন্টে স্বর্ণ জিতে বিশ্বকে তাক লাগিয়ে দিয়েছেন তিনি। প্রমাণ করে ছেড়েছেন, ‘এজ ইজ নট আ ম্যাটার, ইফ দেয়ার ইজ আ উইল!’

 

ওয়ার্ল্ড মাস্টারস গেমের আয়োজন করা হয়েছিল নিউজিল্যান্ডের অকল্যান্ডে। সেখানে যোগ দিয়েছিলেন ভারতের চণ্ডীগড়ের বাসিন্দা ১০১ বছরের বৃদ্ধা মান কউর। দৌড় যখন শুরু হয়, সবাইকে তাক লাগিয়ে ১ মিনিট ১৪ সেকেন্ডে ফিনিশিং লাইনে পৌঁছে যান কউর। আরও আশ্চর্যের বিষয় যে, ২০০৯-এ ১০০ মিটার দৌড়াতে উসাইন বোল্ট সময় নিয়েছিলেন ৬৪.৪২ সেকেন্ড।

 

সেখানে কউর মাত্র কয়েক সেকেন্ডের জন্য পিছিয়ে ছিলেন ওয়ার্ল্ড মাস্টারস গেমের এ ইভেন্টে। এ কৃতিত্বের জন্য নিউজিল্যান্ডের সংবাদমাধ্যমগুলো কউরকে নিয়ে বেশ হইচই শুরু করে দিয়েছে। তাকে ‘মিরাকল অব চণ্ডীগড়’ বলে ডাকা শুরু হয়ে গেছে।

 

তবে এখানে বলে রাখা দরকার, ১০০ মিটার স্প্রিন্টে ১০০ বছরের বেশি বয়স ক্যাটাগরিতে মান কউরই একমাত্র প্রতিযোগী ছিলেন। হোক না একমাত্র প্রতিযোগী, ১০০ মিটার স্প্রিন্ট এত কম সময়ে আর ১০১ বছর বয়সে সেই দৌড় শেষ করা কম কথা নয়! ৬০-৭০ বছর বয়সেই যখন বেশিরভাগ মানুষই জবুথবু হয়ে পড়ে, সেখানে কউরের এ কৃতিত্ব অনেককেই উৎসাহ দেবে।

 

দৌড় শেষে কউর বলেন, ‘দারুণ উপভোগ করেছি। আমি খুব খুশি। আবার দৌড়ব। হাল ছাড়ব না।’ সময় নয়, কউরের কাছে অংশগ্রহণ করাটাই অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ ছিল বলে জানিয়েছেন তার ঘনিষ্ঠরা। এই প্রথম নয় ৯৩ বছর বয়সেও দৌড়ে অংশ নিয়েছিলেন মান কউর। ওয়েবসাইট

LEAVE A REPLY