বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড একাদশ (বিসিবি একাদশ) ও ডিউক অব নরফোক একাদশের মধ্যকার প্রথম প্রস্তুতি ম্যাচে ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক মুশফিকুর রহিমের হার না মানা অপরাজিত ১৩৪ রানে ভর করে সফরের প্রথম প্রস্তুতি ম্যাচে ডিউক অব নরফোক একাদশের বিপক্ষে নির্ধারিত ৫০ ওভার শেষে ৭ উইকেট হারিয়ে ৩৪৫ রান করেছে বিসিবি একাদশ।

 

বিসিবি একাদশের করা ৩৪৬ রানের জয়ের লক্ষ্যে খেলতে নেমে দুর্দান্ত সূচনা পায় ডিউক অব নরফোক। কিন্তু শেষ পর্যন্ত বৃষ্টি বাধায়  পরিত্যক্ত হয় ।

 

বৃষ্টিতে পন্ড বাংলাদেশ-ডিউক অব নরফোকের মধ্যকার প্রস্তুতি ম্যাচটিতে ব্যাট হাতে নরফোকের বিপক্ষে ব্যাটসম্যানরা রাজত্ব চালালেও সুবিধা করতে পারেনি টাইগার বোলাররা।

 

বাংলাদেশী বোলারদের পাত্তা না দিয়ে সাহসীভাবে ব্যাট চালাতে থাকে নরফোকের দুই উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান। ১৮ ওভারে কোন উইকেট না হারিয়েই স্কোরবোর্ডে ১০১ রান যোগ করে ডিউক অব নরফোক। এরপর নেমে আসে বৃষ্টি। ভারী বৃষ্টিপাতের জন্য মাঠ খেলার অনুপযোগী হয়ে গেলে ফলহীন ভাবে শেষ পর্যন্ত ম্যাচটিকে পরিত্যক্ত ঘোষণা করতে বাধ্য হন ম্যাচ অফিশিয়ালরা।

 

এর আগে পশ্চিম সাসেক্সের অরুনদেল কাসল ক্রিকেট গ্রাউন্ডে টস জিতে স্বাগতিকদের বিপক্ষে প্রথমে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেন মুশফিক। অধিনায়কের সিদ্ধান্ত যে ভুল ছিল না ক্রিজে নেমে তাঁর প্রমাণ দেন দুই উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান ইমরুল কায়েস ও সৌম্য সরকার।

 

 

১৪ চার ও ১ ছয়ে অপরাজিত ১৩৪ রানের কার্যকরী ইনিংস খেলার পর মাঠ ছাড়ছেন মুশফিকুর রহিম।

১৪ চার ও ১ ছয়ে অপরাজিত ১৩৪ রানের কার্যকরী ইনিংস খেলার পর মাঠ ছাড়ছেন মুশফিকুর রহিম।

ম্যাচের গোড়াপত্তন করতে নেমে শুরু থেকেই আক্রমণাত্বক খেলতে থাকেন এ দুজন। ইমরুল কায়েস ৪৪ রান করে ফিরে গেলেও ঠিকই অর্ধশতক তুলে নেন সৌম্য সরকার। তবে ৭৩ রানে আউট হলে আজও বাঁহাতি এ ব্যাটসম্যানকে পোড়তে হয় ইনিংসকে তিন অংকের ঘরে নিয়ে না যেতে পারার আক্ষেপে।

 

সৌম্যর আউট হওয়ার পর মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের দ্রুত বিদায়ে ১৫৯ রানে ৪ উইকেট হারিয়ে বসে টাইগাররা। তবে দলের বিপর্যয় বাড়তে দেননি নাসির ও মুশফিক। দীর্ঘদিন পর জাতীয় দলে ফিরে দ্রুত গতিতে রান তুলতে থাকলেও ব্যক্তিগত সংগ্রহকে বড় করতে ব্যর্থ হন নাসির হোসেন। এরপর মেহেদী হাসানকে সাথে নিয়ে বাংলাদেশের ত্রাণকর্তায় পরিণত হন মুশফিকুর রহিম। দলের বিপর্যয় সামাল দেওয়ার পাশাপাশি দ্রুতগতিতে (৮৩ বলে ) শতক পূর্ণ করে দলীয় সংগ্রহকে পাহাড়সম উচ্চতায় নিয়ে যেতে সাহায্য করেন তিনি। অন্যদিকে অধিনায়ককে যোগ্য সঙ্গ দেন মিরাজ।

 

শেষ দিকে অল্প সময়ের ব্যবধানে মিরাজ ৩১ করে ও সানজামুল ১১ করে আউট হলেও ১৩৪ রানে অপরাজিত থেকে দলকে ৩৪৫ রানের শক্ত পুঁজি এনে দেন মুশফিকুর রহিম।

 

সংক্ষিপ্ত স্কোরকার্ডঃ

 

বিসিবি একাদশঃ ৩৪৭/৭ (৫০ ওভার)

মুশফিক ১৩৪*, সৌম্য ৭৩, কায়েস ৪৪, মিরাজ ৩১, নাসির ২৬, সানজামুল ১১, সাব্বির ৫, রিয়াদ ৪, সোহান ২*

 

ডিউক অব নরফোক একাদশ- ১০১/০ (১৮ ওভার)

LEAVE A REPLY