৩০ মে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের সাথে মুঠোফোন সেবা দানকারী প্রতিষ্ঠান ‘রবির’ স্পন্সরশিপের মেয়াদ শেষ হচ্ছে । রবির সাথে স্পন্সরশিপের মেয়াদ শেষ হওয়ার আগেই নতুন স্পন্সরের খোঁজে ইতোমধ্যে মাঠে নেমেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। বাংলাদেশ জাতীয় দলের স্পন্সর হতে প্রথম ধাপে প্রতিষ্ঠানগুলো দরপত্র জমা দেয় ২৯ এপ্রিল। দ্বিতীয় ও শেষ ধাপে দরপত্র জমা দেওয়ার শেষ দিন মঙ্গলবার থাকলেও প্রতিষ্ঠানগুলোর সুবিধার কথা আমলে নিয়ে দরপত্র জমা নেওয়ার সময় বাড়িয়েছে বিসিবি।

মঙ্গলবার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের প্রধান নির্বাহী নিজামউদ্দিন চৌধুরী সুজন। দরপত্র জমা নেওয়ার সময় মঙ্গলবার থাকলেও তা আরো বাড়ানো হয়েছে নিশ্চিত করে সুজন বলেন, ‘২ মে আগ্রহী কর্পোরেট হাউজগুলোর প্রস্তাব পেশ করার কথা ছিল। তবে আমরা বৃহস্পতিবার পর্যন্ত সময় দিয়েছি, যাতে সব কাগজপত্র ঠিকমতো সরবরাহ করা যায়। সরবরাহ করা কাগজপত্র ঠিক থাকলে নিলামে অংশ নিতে পারবে প্রতিষ্ঠানগুলো। ‘

আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে নতুন স্পন্সরের নাম জানা যাবে বলেও এসময় আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি। প্রতিষ্ঠানগুলোর অর্থনৈতিক প্রস্তাব আমলে নিয়ে তা বিসিবির আইনজীবী ও বাণিজ্যিক কমিটির মূল্যায়নের ভিত্তিতে নতুন স্পন্সরকে চূড়ান্ত করা হবে বলে উল্লেখ করেন নিজামউদ্দিন চৌধুরী।

উল্লেখ্য, আগের বারের চেয়ে প্রায় দ্বিগুণ মূল্যে (৬০ কোটি টাকা) স্পন্সরশিপের দরপত্র আহবান করা হয় বিসিবির পক্ষ থেকে। তাতে সাড়া দিয়ে এরই মধ্যে দেশের শীর্ষস্থানীয় পাঁচটি প্রতিষ্ঠান ক্রিকেট বোর্ডে দরপত্র জমা দিয়েছে বলে বিসিবির বিশ্বস্ত সূত্রে জানা গেছে। যার মধ্যে, জাতীয় দলের বর্তমান স্পন্সর প্রতিষ্ঠান রবি ছাড়াও গ্রামীণফোন, প্রাণ, ফ্রেশ রয়েছে বলে জানা গেছে।

এর আগে ২০১৫ সালে ঘরের মাঠে ভারতের বিপক্ষে সিরিজ দিয়ে জাতীয় দলের সাথে যুক্ত হওয়া ‘রবি’ মিডিয়া এজেন্সি ‘টপ অব মাইন্ড’ এর কাছ থেকে জাতীয় দলের স্পন্সর শীপের দায়িত্ব পেয়েছিল। ঐবার ভিত্তিমূল্য ৩০ কোটি টাকার বিপরীতে চূড়ান্ত দরপত্রে গ্রামীণফোনকে হারিয়ে ৪১ কোটি ৪১ লাখ টাকায় জাতীয় দলের স্বত্ব পেয়েছিল ‘টপ অব মাইন্ড’

LEAVE A REPLY